(৯)


বেশ কিছুদিন আগে এক বন্ধুর বাড়িতে গিয়েছিলাম- ধরা যাক বন্ধুর নাম গণেশ। গণেশের একটা ব্যাপক কুকুর আছে ধেড়ে সাইজ- মানে সোজা দাঁড়ালে গণেশের থুতনি অব্ধি পৌঁছিয়ে যাবে। কিন্তু কুত্তাটার বড় বেইজ্জতি হয়- কুকুরদের একটা ব্যাপার আছে, ভালো লোক বুঝলে( যেটা মানুষের আগে বোঝে!) কুকুররা খুব উল্লসিত হয়। ওই আদর-টাদর খেতে টেতে চায় আর কি! তা গণেশের আবার সে সব পছন্দ নয়- কুকুরের উপর তার প্রভুর একছত্র অধিকার থাকা উচিত- অন্ততঃ গণেশ সেই রকমই মনে করে বলেই ধারণা হল। অথবা দিল্লীর সাধারণ জনসাধারণের কুকুরজনিত প্রতিক্রিয়াই হয়তো গণেশকে তার পোষ্যর ইজ্জত রক্ষার্তে এই ধারণা ধারণ করতে বাধ্য করেছে। তাই আমি যেতেই কুকুরটি যেই আহ্লাদিত হয়ে আমার কাছে ছুটে এসেছে গনেশ বাবু তীব্র ক্ষীপ্রতার সঙ্গে তার কপালে ঘুষি মেরে গাল পাড়ল “বানর”।

কুকুর বেচারী এরকম সহসা নামকরনে লজ্জিত হয়ে কুর কুর করে ভিতরে চলে গেল- যাবার সময় আমার মুখের দিকে করুণ ভাবে তাকিয়ে যেন বলে গেল-” কি হতে পারত, কি হল না?”

আমিও ভাবতে লাগলাম কানা ছেলের নাম পদ্মলোচন হয় তাহলে!

পুঃ কালও গিয়েছিলাম গণেশের বাড়িতে- কুকুরটির নতুন নামকরণ হয়েছে- ‘হনুমান’! আহা! কলিকালের মাহাত্ম!

Leave a Reply

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out / পরিবর্তন )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out / পরিবর্তন )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out / পরিবর্তন )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out / পরিবর্তন )

Connecting to %s